Martyred Intellectuals | মুহম্মদ আবদুল মুক্তাদির
762
page-template,page-template-full_width,page-template-full_width-php,page,page-id-762,page-child,parent-pageid-646,ajax_fade,page_not_loaded,,select-theme-ver-4.6,wpb-js-composer js-comp-ver-5.5.5,vc_responsive

মুহম্মদ আবদুল মুক্তাদির

জন্ম – ১৯৪০

“ত্যাগের মূলমন্ত্রে দীক্ষিত এক নির্ভীক যোদ্ধা”

বাবা মা-এর অত্যন্ত আদরের সন্তান মুহম্মদ আবদুল মুক্তাদিরের শৈশব কাটে সিলেটে। সেখান থেকেই তিনি আই.এস.সি পাশ করেন এবং এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৬২ সালে ভূতত্ত্বে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবনের শুরুতে তিনি কাজ করেন পানি ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন দপ্তরে। ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। সহকর্মীদের প্রচণ্ড ভালোবাসার এবং শ্রদ্ধার এই মানুষটি সবসময় বলতেন, “ত্যাগ স্বীকার না করলে মানুষের জন্য ভালো কাজ করা যায় না।”

এ দেশের মানুষের বঞ্চিত অবস্থা দেখে তিনি চিন্তিত ও অস্থির থাকতেন। অন্যায়ের প্রতিবাদ ও সত্য স্বীকার করে তা প্রকাশ করাতে সদা নির্ভীক এই মানুষটিকে আমরা হারাই স্বাধীনতাঁর প্রারম্ভেই।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ সকালে পাক হানাদার বাহিনী তাঁর স্ত্রীর সামনে তাঁকে নির্মমভাবে হত্যা করে। শেষ মুহূর্তে তাঁকে আত্মসমর্পন করে বাঁচার সুযোগ দেয়া হয়েছিলো। মৃত্যুকে অনিবার্য জেনেও পাকিস্থানিদের কাছে তিনি নত স্বীকার করেননি। হত্যাকারীরা তাকে হত্যা করতে পেরেছিল ঠিকই কিন্তু তাঁর আদর্শকে স্পর্শও করতে পারেনি, পারবেও না কোনো দিন।