Martyred Intellectuals | মামুন মাহমুদ
542
page-template,page-template-full_width,page-template-full_width-php,page,page-id-542,page-child,parent-pageid-646,ajax_fade,page_not_loaded,,select-theme-ver-4.6,wpb-js-composer js-comp-ver-5.5.5,vc_responsive

মামুন মাহমুদ

জন্ম – ১৯২৮

“সরকারের সাথে থেকেই কন্ঠটা তুলেছিলেন সরকারের বিরুদ্ধে”

চট্টগ্রামের ছেলে মামুন মাহমুদ ১৯৪৩ সালে ম্যাট্রিক পাশ করেন কলকাতার বালিগঞ্জ গভর্নমেন্ট হাইস্কুল থেকে। ১৯৪৫ সালে প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে আই.এ. পাশ করেন। এরপর ১৯৪৭ সালে আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ. পাশ করেই তিনি ফিরে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখান থেকে ১৯৪৯ সালে পাবলিক রিলেশনে এমএ পাশ করেন।

সরকারি কর্মকর্তা হওয়ার কারণে বিভিন্ন সময় দেশের বিভিন্ন জায়গায় তিনি ছিলেন। মামুন মাহমুদ কুড়িগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, ফরিদপুর, খুলনা, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও রাজশাহীতে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন। সরকারি কর্মকর্তা হয়েও বাংলাদেশের স্বার্থবিরোধী কোনো পদক্ষেপ নিতেন না। আর সেজন্যই পাকিস্তানিদের কাছে তিনি চক্ষুশূল হয়েছিলেন। ১৯৭১ সালের ৩রা মার্চ পাকিস্তানি সেনারা নিরীহ বাঙালির উপর গুলি চালায়। এতে বেশ কিছু মানুষ হতাহত হয়। প্রগতিশীল মামুন মাহমুদ পুরো ঘটনাটার তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। প্রতিবাদ হিসাবে তাঁর সরকারি বাস ভবনে উত্তোলন করেন কালো পতাকা।

মামুন মাহমুদের বিবাহবার্ষিকীর দিন। ইতোমধ্যে তার নানা পদক্ষেপের কারণে প্রশাসনের গলার কাঁটা হয়ে গিয়েছেন। সন্ধ্যায় একজন পাকিস্তানি অফিসার তাঁকে রাজশাহী ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যায়। সেদিনের পর তিনি আর কখনোই ফিরে আসেননি। দিনটি ছিলো ২৬শে মার্চ, ১৯৭১।